রোজ বৃহস্পতিবার, ১লা অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, রাত ১০:৪০

শিরোনামঃ
মেহেন্দিগঞ্জ মসজিদে ছবি সম্ভলিত ব্যানার টানিয়ে বিতর্কিত কর্ম কান্ডের জন্য ক্ষমা চাইলেন কৃষক লীগের সম্পাদক পলাশ ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের অনলাইন ক্লাশ ৪ অক্টোবর থেকে শুরু সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছাড়লেন ওয়াহিদা খানম ফের বাড়লো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি নিজের বলার মত একটা গল্প ফাউন্ডেশনের হাজারতম দিন উদযাপন বরিশাল জেলা প্রশাসনের আয়োজনে আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহর সুস্থতা কামনা করে দোয়া মোনাজাত অনুষ্ঠিত কারো অপকর্মের দায় আওয়ামী লীগ ও সংসদ সদস্য নেবে না- সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগ সভাপতি বরিশালে অনুষ্ঠিত হলো কম্যুনিটি স্কুল শিক্ষার্থীদের পুষ্টি ও শিক্ষা কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান বরগুনার রিফাত হত্যা মামলায় মিন্নিসহ ৬ জনের ফাঁসির আদেশ ৪ জন খালাস তানোরের গির্জায় কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে ফাদার গ্রেপ্তার
যৌতুকের বলি হচ্ছেন দুই সন্তানের জননী, ভেঙ্গে যাচ্ছে তার ১৬ বছরের সংসার!

যৌতুকের বলি হচ্ছেন দুই সন্তানের জননী, ভেঙ্গে যাচ্ছে তার ১৬ বছরের সংসার!

ধানসিঁড়ি নিউজ।। যৌতুকের জন্য তালাক দিচ্ছেন দুই সন্তানের জননীকে। জানা গেছে, বাকেরগঞ্জ থানার দূর্গাপাশা ইউনিয়নের বিশারিকাঠী গ্রামের কাকলি বেগমের বিয়ে হয় ১৬ বছর পূর্বে তার স্বামী মোতালেব হাং এর সাথে।

স্থানীয়দের মতে, কাকলির বয়স যখন ১৫ তখন তার আত্বীয় মোতালেব এর সাথে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। বর্তমানে কাকলি বেগমে দুটি সন্তান রয়েছ। তাদের একজন ছেলে(৬) এবং অন্যজন মেয়ে (৮)। বিয়ের প্রথম দুই বছর খুব ভালোই কাটে। তারপর থেকেই শুরু হয় টুঁকিটাঁকি ঝগড়াঝাটি। তারপর দিন যতই যায় নির্যাতনের পরিমাণ দিন দিন বেড়েই যায়। প্রায়শই রাতে স্বামী (মোতালেব) তাকে লাঠি পেটা করতো এবং শ্বশুর ও শ্বাশুড়ি চুল ধরে গ্লাস ভাঙ্গা দিয়ে শারিরীক নির্যাতন করত। নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে কাকলী চলে আসে তার বাবার বাড়িতে।

স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিদের নিয়ে বিচারে বসালে, “মোতালেব বলে আমি মুক্তি চাই,আমি ওকে (কাকলিকে) তালাক দিবো। যদি ওর বাবা ৫ লক্ষ টাকা দেয়, তাহলে আমি ওকে ঘরে তুলবো নয়তো নয়।” কিন্তু কাকলীর বাবার এত টাকা যৌতুক দেয়ার সামর্থ্য না থাকায় তিনি তা দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মোতালেব বলে আমি ওর তালাক নামা পাঠিয়ে দিবো। কিন্তু অসহায় কাকলী ও তার পরিবার চায় কাকলী তার স্বামীর ঘরই করবে এবং বাচ্চা দুটি তার বাবার আদরেই বড় হবে।