রোজ বৃহস্পতিবার, ৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২৩শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, রাত ৪:৪৩

শিরোনামঃ
মির্জাগঞ্জে ৬০ হাজার কেজি নিষিদ্ধ পলিথিন জব্দ শেখ হাসিনার দূরদর্শিতায় মানুষের জীবিকা ও অর্থনীতি সচলঃ এমপি জ্যাকব কলাপাড়ায় মোটরসাইকেল দূর্ঘটনায় স্কুল ছাত্র নিহত বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্র ও গাঁজা সহ পিতা-পুত্র গ্রেফতার। ইসরায়েলে ধর্মীয় উৎসবে পদদলিত হয়ে ৪৪ জনের প্রাণহানি হাসপাতাল পালানো সেই ১০ জনের ‘ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট’ পরীক্ষার উদ্যোগ নেই দিল্লির শ্মশানে দীর্ঘ লাইন, মরদেহ ছিঁড়ে খাচ্ছে কুকুর অধিক দামে তরমুজ বিক্রয় করার অপরাধে ০৬ ব্যবসায়ীকে ৯,৭০০ টাকা জরিমানা বরিশালে তরমুজের বাজার স্থিতিশীল রাখতে বিভিন্ন বাজারে মোবাইল কোর্ট অভিযানে ১৪ ব্যবসায়ীকে ১০৩০০ টাকা জরিমানা পাত্র করোনায় আক্রান্ত, পিপিই পরেই বিয়ে সারলেন কনে!
কারওয়ান বাজার-সংলগ্ন বিজিএমইএ ভবনের মালামাল সরানো হচ্ছে।

কারওয়ান বাজার-সংলগ্ন বিজিএমইএ ভবনের মালামাল সরানো হচ্ছে।

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কারওয়ান বাজার-সংলগ্ন বিজিএমইএ ভবনের মালামাল দ্রুত অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হচ্ছে।
রাজউকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রট, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অতিরিক্ত সদস্যদেরা উপস্থিতিতে এই কার্যক্রম শুরু হয়েছে। রাজধানীর হাতিরঝিল লেকে অবৈধভাবে নির্মিত বহুতল বিজিএমইএ ভবন ভাঙার কাজ আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হচ্ছে আজই। ভবনের গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানি, টেলিফোন লাইনসহ সব ইউটিলিটি সার্ভিস সংযোগ বিচ্ছিন্নের মাধ্যমে এ কাজ শুরু করবে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক)।
তবে বিজিএমইএ ভবনে যেসব অফিস বা প্রতিষ্ঠান ভাড়া নিয়ে অথবা ক্রয় করে অফিস পরিচালনা করছিল তাদেরকে আগে থেকে বিজিএমইএ কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে কিছুই জানায়নি বলে অভিযোগ করেছেন কেউ কেউ। তবে অফিসগুলো তাদের মালামাল সরিয়ে নিতে কাজ করছে।
আজ সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাজউক পরিচালক (প্রশাসন) খন্দকার অলিউর রহমান উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, ‘রাজধানীর হাতিরঝিল লেকে অবৈধভাবে নির্মিত বহুতল বিজিএমইএ ভবন ভাঙার কাজে সার্বিকভাবে প্রস্তুত আছি। ভবন ভাঙার জন্য আমাদের বুলডোজারসহ অন্যান্য গাড়ি সামনে প্রস্তুত রয়েছে। এই ভবনে ব্যাংকসহ অন্যান্য অফিস আছে। ব্যাংকের ভল্টে টাকাসহ অফিসের অন্য মালামাল তারা (বিভিন্ন অফিস সংশ্লিষ্টরা) সরিয়ে নেয়ার কাজ করছে। আমাদের কাছ থেকে তারা সময় চেয়ে নিয়েছে। আমরা তাদের মালামাল সরিয়ে নেয়ার জন্য সময় এবং সুযোগ দিয়েছি।তিনি বলেন, অপসারণের পর আমাদের কার্যক্রম শুরু হবে এতে ১০ ঘণ্টা লাগতে পারে আবার একদিনও লাগতে পারে।

তিনি আরও বলেন, ‘মহামান্য হাইকোর্ট ১২ এপ্রিল পর্যন্ত সময় দিয়েছিলেন। মাঝখানে কয়েকদিন বন্ধ ছিল। এরপর কর্মদিবস শুরু হয়েছে আমরাও আমাদের কাজ শুরু করেছি।’