রোজ শনিবার, ২৪শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৯ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, রাত ৪:১৬

শিরোনামঃ
মীরগঞ্জ খেয়াঘাটে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের প্রতিবাদ করায় যাত্রীকে মারধর- অভিযুক্ত গ্রেফতার নগদের ৮ লক্ষ টাকা ছিনতাইয়ের রহস্য উদঘাটন, ডিএসও নুরুল্লাহ গ্রেফতার। বিএমপি’র সৌজন্যে অসহায় ও দুঃস্থদের মাঝে ঈদ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠিত মেহেন্দিগঞ্জে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গৃহবধূকে পিটিয়ে জখম। মতলবে দি একমি ল্যাবরেটরিজ লিঃ এর বিক্রয় প্রতিনিধির আত্মহত্যা নগরীতে করোনা প্রতিরোধ বুথের উদ্বোধন করলেন পুলিশ কমিশনার বিএমপি। বরিশালে জেলা প্রশাসন ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সমন্বয়ে ৩ শতাধিক শিশুকে খাদ্য বিতরণ করেন জেলা প্রশাসক পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রীর বিশেষ বরাদ্দে ১নং রায়পাশা-কড়াপুর ইউনিয়নের মাখরকাঠী গ্রামের পাকা রাস্তার কাজ শেষ পর্যায়ে মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সেন্ট্রাল অক্সিজেন দেওয়া হবে-পংকজ নাথ এমপি বরিশালে প্রথম দফায় নির্বাচিত ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত
আড়াই কোটি টাকা মূল্যের একটি ওয়াটার অ্যাম্বুলেন্স ও মেরিন রেসকিউ বোট অকেজো পড়ে আছে

আড়াই কোটি টাকা মূল্যের একটি ওয়াটার অ্যাম্বুলেন্স ও মেরিন রেসকিউ বোট অকেজো পড়ে আছে

অনলাইন ডেস্কঃ খুলনায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে দেওয়া প্রায় আড়াই কোটি টাকা মূল্যের একটি ওয়াটার অ্যাম্বুলেন্স ও একটি মেরিন রেসকিউ বোট অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে রয়েছে প্রায় ৫ বছর। চালক না থাকায়, দেওয়ার পর থেকে কখনও এটি চালানো হয়নি। এর ফলে এগুলো অকেজো হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

খুলনা জেলা প্রশাসনের ত্রাণ শাখাসূত্রে জানা গেছে, ২০১৪ সালে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে খুলনা জেলা প্রশাসনকে একটি ওয়াটার অ্যাম্বুলেন্স এবং একটি মেরিন রেসকিউ বোট দেওয়া হয়। প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় মানুষকে উদ্ধার এবং ত্রাণ তৎপরতা চালানোর জন্য এ দুটি জলযান দেয় মন্ত্রণালয়। যার মূল্য প্রায় আড়াই কোটি টাকা। সংশ্নিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, দেওয়ার পর থেকে জলযান দুটি বন বিভাগের নিয়ন্ত্রণাধীন রূপসা নদীর ফরেস্ট ঘাটে পড়ে রয়েছে। ব্যবহার ও রক্ষণাবেক্ষণ না হওয়ায় জলযান দুটির ইঞ্জিন ও অন্যান্য যন্ত্রাংশ বিকল হওয়ার পথে।

এ ব্যাপারে খুলনা নাগরিক সমাজের সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট বাবুল হাওলাদার বলেন, খুলনা এমনিতেই উন্নয়ন বঞ্চিত ও অবহেলার শিকার। সেখানে মন্ত্রণালয় দুর্যোগকালীন উদ্ধার ও ত্রাণ তৎপরতার জন্য দুটি জলযান দিয়েছিল। সেই জলযান অযত্ন অবহেলায় নষ্ট হয়ে যাবে এটা মেনে নিতে কষ্ট হয়। তিনি বলেন, দুর্যোগ প্রবণ জেলা খুলনায় জলযান দুটি যাতে ব্যবহার করা যায়, জেলা প্রশাসনের সেই পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।

এ ব্যাপারে খুলনার জেলা প্রশাসক মোঃ হেলাল হোসেন বলেন, ওয়াটার অ্যাম্বুলেন্স দেওয়া হলেও জেলা প্রশাসনের অধীনে এটির চালকের কোনো পদ নেই। সে কারণে এটি অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে রয়েছে। বিষয়টি লিখিতভাবে একাধিকবার মন্ত্রণালয়কে জানানো হয়েছে। সমস্যার সমাধান হয়নি। এলাকাবাসী আশা করছেন, মূল্যবান এই সম্পদ অচিরেই জনগণের প্রয়োজনে ব্যবহারের উপযুক্ত করা হবে।