রোজ শনিবার, ২৪শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৯ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, রাত ৪:২৮

শিরোনামঃ
মীরগঞ্জ খেয়াঘাটে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের প্রতিবাদ করায় যাত্রীকে মারধর- অভিযুক্ত গ্রেফতার নগদের ৮ লক্ষ টাকা ছিনতাইয়ের রহস্য উদঘাটন, ডিএসও নুরুল্লাহ গ্রেফতার। বিএমপি’র সৌজন্যে অসহায় ও দুঃস্থদের মাঝে ঈদ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠিত মেহেন্দিগঞ্জে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গৃহবধূকে পিটিয়ে জখম। মতলবে দি একমি ল্যাবরেটরিজ লিঃ এর বিক্রয় প্রতিনিধির আত্মহত্যা নগরীতে করোনা প্রতিরোধ বুথের উদ্বোধন করলেন পুলিশ কমিশনার বিএমপি। বরিশালে জেলা প্রশাসন ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সমন্বয়ে ৩ শতাধিক শিশুকে খাদ্য বিতরণ করেন জেলা প্রশাসক পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রীর বিশেষ বরাদ্দে ১নং রায়পাশা-কড়াপুর ইউনিয়নের মাখরকাঠী গ্রামের পাকা রাস্তার কাজ শেষ পর্যায়ে মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সেন্ট্রাল অক্সিজেন দেওয়া হবে-পংকজ নাথ এমপি বরিশালে প্রথম দফায় নির্বাচিত ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত
জল দিচ্ছি না তাই ইলিশ পাচ্ছি না: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

জল দিচ্ছি না তাই ইলিশ পাচ্ছি না: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

অনলাইন ডেস্কঃ পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, ‘বাংলাদেশকে আমরা তিস্তার জল দিতে পারিনি তাই ওরা আমাদের ইলিশ দেওয়া বন্ধ করেছে।’ আজ মঙ্গলবার বিধানসভার অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে বিধায়ক রহিমা বিবির প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে মমতা এ কথা বলেন।
ওই বিধায়কের প্রশ্নের জবাবে মমতা বলেন,‘বাঙালি মাছে-ভাতে থাকতে ভালোবাসে । কিন্তু বাংলাদেশকে আমরা তিস্তার জল দিতে পারিনি। তাই ওরা আমাদের ইলিশ দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে। বাংলাদেশ আমাদের বন্ধু দেশ। কিন্তু জল নেই, তাই কোথা থেকে জল দেব ?’
মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ’আমরা ইলিশ মাছ উৎপাদনের লক্ষ্যে রিসার্চ সেন্টার করেছি। আমাদের এই বাংলায় এখন ইলিশ মাছের অভাব নেই। আগামী দিনে আমাদের এই ইলিশ নিয়ে গবেষণা শেষে আমরা প্রচুর ইলিশ উৎপাদনে সমর্থ হব। তখন গোটা দেশে ইলিশ সরবরাহ করতে পারব। দু-এক বছরের মধ্যে আর আমাদের বাইর থেকে ইলিশ আনতে হবে না।’
২০১২ সালের জুলাই থেকে বাংলাদেশ সরকার ভারতে ইলিশ রপ্তানি বন্ধ করে দেয়। এরপর থেকে পশ্চিমবঙ্গের ইলিশ ব্যবসায়ীরা এই নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে আসছে। তবে বাংলাদেশ সরকারের আরোপিত নিষেধাজ্ঞায় এখনো কোনো পরিবর্তন আসেনি।
এদিকে তিস্তার পানির দাবিতে অনড় রয়েছে বাংলাদেশ। কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন সাবেক ইউপিএ সরকারের আমল থেকে এই পানি বণ্টনের জন্য বাংলাদেশ দাবি জানিয়ে আসছে। তবে ভারত সরকার এখনো তাতে সবুজ সংকেত দেয়নি। মমতা তিস্তার পানি না থাকার কারণ দেখিয়ে এই পানি বণ্টন চুক্তির বিরোধিতা করছেন।