রোজ শনিবার, ২৪শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৯ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, রাত ৩:১৩

শিরোনামঃ
মীরগঞ্জ খেয়াঘাটে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের প্রতিবাদ করায় যাত্রীকে মারধর- অভিযুক্ত গ্রেফতার নগদের ৮ লক্ষ টাকা ছিনতাইয়ের রহস্য উদঘাটন, ডিএসও নুরুল্লাহ গ্রেফতার। বিএমপি’র সৌজন্যে অসহায় ও দুঃস্থদের মাঝে ঈদ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠিত মেহেন্দিগঞ্জে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গৃহবধূকে পিটিয়ে জখম। মতলবে দি একমি ল্যাবরেটরিজ লিঃ এর বিক্রয় প্রতিনিধির আত্মহত্যা নগরীতে করোনা প্রতিরোধ বুথের উদ্বোধন করলেন পুলিশ কমিশনার বিএমপি। বরিশালে জেলা প্রশাসন ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সমন্বয়ে ৩ শতাধিক শিশুকে খাদ্য বিতরণ করেন জেলা প্রশাসক পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রীর বিশেষ বরাদ্দে ১নং রায়পাশা-কড়াপুর ইউনিয়নের মাখরকাঠী গ্রামের পাকা রাস্তার কাজ শেষ পর্যায়ে মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সেন্ট্রাল অক্সিজেন দেওয়া হবে-পংকজ নাথ এমপি বরিশালে প্রথম দফায় নির্বাচিত ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত
দাসত্বের হাত থেকে মুক্তি কি মিলবে কভূ?

দাসত্বের হাত থেকে মুক্তি কি মিলবে কভূ?

দাস মনিব দাসত্ব এর থেকে মুক্তি কি আসবে না হে কান্ডারী?

বিশদ আলোচনার পূর্বে দাসতত্ব নিয়ে একটু আলোচনা করে নিতে চাইঃ
রাষ্ট্র দর্শনে এরিস্টটল যে সকল মতবাদ ব্যক্ত করেছন তার মধ্যে দাস তত্ত্ব বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। এরিস্টটল তার চিন্তাধারায় এক বিশেষ জায়গা দখল করে আছে এই দাস তত্ত্ব। তিনি বলেন , প্রভূ ও দাসের মধ্যে যে ব্যবধান বিদ্যমান তা শুধু আইনগত ব্যবধানই নয় বরং তা স্বাভাবিক ও ন্যায়ভভিত্তিক ও বটে।
এরিস্টটল তাঁর দাসতত্ত্বে ঘোষনা করেন যে,দাসপ্রথা প্রকৃতির একটি শাশ্বত নীতিরই ফলশ্রুতি এবং এই নীতি হচ্ছে আদেশ ও আনুগত্বের এক সফল সমন্বয়। মানবিক উদ্দেশ্য সাধনের লক্ষ্যেই এই সমন্বয়ের সূচনা।

দাস ও প্রভূ সম্পর্কে এরিস্টটলের বক্তব্যঃ

এরিস্টটল দাসতত্ত্বের স্বপক্ষে যুক্তি দানের পূর্বে তিনি দাস ও প্রভূ সম্পর্কে আলোচনা করেন। এরিস্টটলের মতে কিছু লোক প্রজ্ঞার অধিকারী হয় এবং এই প্রজ্ঞার বলে তারা শুধু আদেশ প্রদানেই সক্ষম। পক্ষান্তরে বেশির ভাগ লোক শুধু দৈহিক বলে বলিয়ান এবং দৈহিক বলের কারনে তারা শুধু কায়িক পরিশ্রমে সক্ষম। তাদের মধ্যে প্রজ্ঞার অভাব থাকায় তারা আদেশ প্রদানে অক্ষম। তাদের একমাত্র যোগ্যতা তারা প্রজ্ঞাবানদের আদেশ মান্য করে তদানুযায়ী কাজ করে যাবে। তারঁ মতে প্রথম শ্রেণীর লোকেরা হচ্ছেন প্রভূ (Master) আর দ্বিতীয় শ্রেনীর লোকেরা হচ্ছে দাস (Slaves)। প্রভূরা যুক্তি বা আত্মার প্রতিনিধি আর দাসরা লালসা বা দেহের প্রতিনিধি। প্রকৃতিগত ভাবে যেহেতু দেহ আত্মার অধীন,অনুরুপ কারনে দাস প্রভূর অধীন। অতএব,প্রভূ ও দাসের মধ্যে যে সম্পর্ক তা উত্তম ও অধমের সম্পর্ক।
অবশ্য এই তত্ত্বের ও রয়েছে প্রচুর সমালোচনা ও বিরোধী মতবাদ। তা অন্যএক সময়ে আলোচনা করব আশারাখি।

এতদিন পরে এই কথাগুলো মনে করার প্রয়োজন ছিল বিধায় কিছু কথা স্মরণ করানোর চেষ্টা করলাম।
আমরা জানি “God has made all free, Nature has made a man slave.”
বর্তমান সময়ে কিছু স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠী তাদের আধিপত্ব্য, মহারাজত্ব, গোড়ামী, নষ্টামী প্রতিষ্ঠিত করার জন্য আজও মানুষকে তাদের দাস বানিয়ে রেখেছেন অলিখিত ভাবে।
বর্তমান সময়ে প্রতিটি সরকারী বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে উর্ধ্বতন তার অধঃস্তনের সাথে দাস মনিব খেলা খেলে।
আর এই অন্যায়ের সুযোগ পায় বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থার জন্যই।
জীবনে প্রথম যেদিন স্কুলে যায় প্রতিটি মানুষের মনে থাকে রঙ্গিন স্বপ্ন।এই স্বপ্ন নিয়ে তাদের পড়াশুনা শুরু হয়। পড়াশুনার স্তর বাড়তে বাড়তে একসময় শিক্ষাব্যবস্থার অব্যবস্থাপনায় কেউ হয় দাস আর কেউ হয় প্রভূ।
একটু খোলাসা করে বললে, একই ডিগ্রিধারী হয়েও একজন হয় ডাক্তার আর একজন কেরানি একজন হয় ইঞ্জিনিয়ার আর একজন পিয়ন। সমসাময়িক সময়েই একজন হয়ে যায় প্রভু আর একজন হয়ে যায় গোলাম।
বর্তমান বাংলাদেশে বি এস সি, বি এস এস এবং এম বি বি এস এর মধ্যে রয়েছে বিস্তর ফারাক। পাশ করার পরে উপযুক্ত চাকুরি না পেলে প্রথম দুই ডিগ্রিধারী তৃতীয় জনের এক প্রকার দাসে পরিনত হয়। কোন কারনে তাদের চেম্বারে যদি যেতে হয়। আর স্যার না বলে যদি ভাই বা অন্য কিছু সম্ভোধন করেন তবে বুঝতে পারবেন প্রভুর আসল রুপ।
যদিও উপযুক্ত পরিবেশ এবং সাহচর্য পেলে প্রথম দুই ডিগ্রিধারী ও তৃতীয় ভাগ্যবানদের কাতারে যেতে পারতেন।
বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও সম্মানজনক সর্বোচ্চ ক্যাডার বিসিএস এ তৃতীয় দলের জন্য রয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা। আর সাধারন ছাত্র/ছাত্রীরা যুদ্ধ করে এক অসম প্রতিযোগিতায়। এই প্রতিযোগিতায় হয়তো কেউ কেউ জিতেও যায়। আর যারা হেরে যায় তারা পুরো জীবনের সাথেই হেরে গেল।

কারন বিএসসি,এমএসসি সম্পূর্ণ করে বিসিএসের দৌরে হেরে আপনি যদি সরকারী চাকুরী না পান তাহলে কি করবেন? হয়তো পিয়ন, নয়তো কেরানি,অথবা অন্য যেকোন কিছু। কারন আপনার ৩০ বছরের কোঠা পূর্ণ করে ফেলেছেন আর কিছুই করার নেই।

আর যদি হতে পারেন ঔষধ কোম্পানির প্রতিনিধি তাহলে আপনি আপনার দাসত্বের ষোল কলা পূর্ন করে ফেলেছেন। আর কিছু বাকি রইল না।