রোজ মঙ্গলবার, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, সন্ধ্যা ৭:২০

শিরোনামঃ
বরিশালে ঘুরতে এসে বাসের চাপায় প্রাণ গেল তিন জনের দীর্ঘদিন বন্ধের পরে আজ খুলেছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, পরিদর্শনে বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসক বরিশালে ৬ ফার্মেসিকে ২৭ হাজার টাকা জরিমানা বিশেষ কায়দায় ফেনসিডিল বহন করেও শেষ রক্ষা হলো না তাদের, বিএমপি’র অভিযানে আটক ৪। দুইজন নারী ও ফেন্সিডিলসহ বরিশালে মাদক ব্যবসায়ী বুলেট গ্রেফতার কক্সবাজার জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ইয়াবাসহ গ্রেফতার একজন বিএমপি’র অভিযানে ৪৫ পিস ইয়াবা সহ গ্রেফতার ০২ বরিশালে লকডাউন বাস্তবায়নে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ১ লক্ষ ৩৭ হাজার টাকা জরিমানা ও ৬ জনকে আটক। মীরগঞ্জ খেয়াঘাটে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের প্রতিবাদ করায় যাত্রীকে মারধর- অভিযুক্ত গ্রেফতার নগদের ৮ লক্ষ টাকা ছিনতাইয়ের রহস্য উদঘাটন, ডিএসও নুরুল্লাহ গ্রেফতার।
বরিশাল জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন ও খাদ্য বিতরন

বরিশাল জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন ও খাদ্য বিতরন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বরিশাল জেলার বাবুগঞ্জ উপজেলার মধ্যদিয়ে বহমান সন্ধ্যা নদীর ভয়াবহ ভাঙ্গনে ইতোমধ্যে বিলীন হয়ে গেছে নদী তীরবর্তী শত শত ঘরবাড়ি, আবাদি জমি ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা। এতে নিঃস্ব হয়ে পথে বসেছে শত শত পরিবার। নদী ভাঙ্গনে প্রতিনিয়তই বিনিদ্র রাত কাটাচ্ছেন ভাঙ্গন কবলিত পরিবারের সদস্যরা। গতকাল পূর্ব ভুতের দিয়া গ্রামের কয়েকটি বসতঘর সন্ধ্যা নদীতে বিলীন হয়ে যায়। পাশাপাশি বেশ কিছু স্থাপনা, দোকান ঘরসহ ফলন্ত বৃক্ষ। এছাড়া ভাঙ্গন ঝুঁকিতে রয়েছে একটি মসজিদ।গতকাল ১৮ জুলাই বিকাল ৬ টায় ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক বরিশাল মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী অফিসার বাবুগঞ্জ ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) বরিশাল, নুসরাত জাহান, বরিশাল ডিআরআরও মোঃ আবদুল লতিফ, কেদারপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান, নুরে আলম ব্যাপারি, সিনিয়র সহসভাপতি জেলা আওয়ামীলীগ বরিশাল, মোহাম্মদ হোসেন চৌধুরী, পিআইও বাবুগঞ্জ, আরিফুর রহমানসহ এলাকার বাসিন্দারা উপস্থিত ছিলেন। এসময় ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে খাবার সামগ্রী বিতরণ করেন এবং তাদের সব ধরনের সাহায্য সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন। পাশাপাশি নদী ভাঙ্গন প্রতিরোধে সরকারের পক্ষ থেকে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করার ও আশ্বাস দেন। স্থানীয়দের দাবি অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ করে অচিরেই ভাঙ্গন কবলিত এলকায় প্রতিরোধে কাজ শুরু না করলে মানচিত্র থেকে হারিয়ে যাবে বাবুগঞ্জ উপজেলার নদী ও তীরবর্তী অসংখ্য গ্রাম।