রোজ বৃহস্পতিবার, ২২শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ৬ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, রাত ১২:৫৯

শিরোনামঃ
মেহেন্দিগঞ্জে মা ইলিশ রক্ষায় অব্যাহত অভিযানে ৬৭ জেলের কারাদন্ড এবং লক্ষাধিক টাকা জরিমানা আদায় পলাশপুর কলোনীতে মহানগর গোয়েন্দা বিএমপি’র ব্লক রেইড। মাধ্যমিকে বার্ষিক পরীক্ষা হচ্ছে না, অ্যাসাইনমেন্টে মূল্যায়ণ মেহেন্দিগঞ্জে মা ইলিশ রক্ষায় ৫৯ জেলের কারাদন্ড; ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা জরিমানা আদায়৷ সনাতন ধর্মালম্বীদের শারদীয় শুভেচ্ছা জানালেন হাজী মোঃ শরিফুল হক শারদীয় দুর্গা পূজা উদযাপন উপলক্ষে সদর উপজেলা ও মহানগরের পূজা মণ্ড‌পে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রীর অনুদান অনলাইনে নয় সরাসরি ভর্তি পরীক্ষা ঢাবিতে, স্ব স্ব বিভাগে পরীক্ষা দেয়ার বিষয়টি বিবেচনাধীন এক আঙিনায় মসজিদ ও মন্দির সহাবস্থানে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ মা ইলিশ রক্ষায় ইউএনও-র অভিযানে ৩৫ জেলের কারাদন্ড; ৯৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায়
ঐক্যবদ্ধ হয়ে মোদির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ঘোষণা কাশ্মীরের সব রাজনৈতিক দলের

ঐক্যবদ্ধ হয়ে মোদির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ঘোষণা কাশ্মীরের সব রাজনৈতিক দলের

নিউজ ডেস্কঃ দখলকৃত কাশ্মীরের সাংবিধানিক মর্যাদা বাতিল ও অঞ্চলটিকে দুই ভাগে পরিণত করতে এক বছর আগে নেয়া ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন উগ্র হিন্দুত্ববাদী ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) সরকারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়েছে উপত্যকার প্রধান ছয়টি রাজনৈতিক দল। দীর্ঘদিনের শত্রুতা ভুলে তাদের এই জোটবদ্ধ হওয়াকে স্থানীয় রাজনীতিতে বড় ধরনের পরিবর্তন বলে মনে করা হচ্ছে।
ন্যাশনাল কনফারেন্স, পিপলস ডেমক্রেটিক পার্টি (পিডিপি), জম্মু-কাশ্মীর কংগ্রেস, পিপলস কনফারেন্স, সিপিএম এবং জম্মু-কাশ্মীর আওয়ামি ন্যাশনাল কনফারেন্সের এক যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়, ২০১৯ সালের ৫ আগস্টের সিদ্ধান্ত কাশ্মীর ও নয়া দিল্লীর মধ্যে সম্পর্ক বদলে দিয়েছে।
দলগুলো কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বিষয়ক ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ ফিরিয়ে আনতে ঐক্যবদ্ধ লড়াইয়ের অঙ্গীকার করে দিল্লীর সিদ্ধান্ত ‘আক্রোশপূর্ণ অদূরদর্শিতা’ ও ‘পুরোপুরি অসাংবিধানিক’ হিসেবে আখ্যায়িত করে।
বিবৃতিতে বলা হয় সব পক্ষ ২০১৯ সালের ৪ আগস্ট নেয়া ‘গুপকার ঘোষণা’ মেনে চলবে। তাতে আঞ্চলিক দলগুলো ও কংগ্রেস কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা রক্ষা এবং এটা বিনষ্টের যেকোন প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অঙ্গীকার ব্যক্ত করে। শনিবারের (২২ আগস্ট) এই বিবৃতিতে সই করেছেন কাশ্মীরের ন্যাশনাল কনফারেন্সের সভাপতি ফারুক আবদুল্লাহ, পিডিপি প্রধান মেহবুবা মুফতী, জম্মু-কাশ্মীর কংগ্রেসের প্রধান জি এ মির, পিপলস কনফারেন্স নেতা সাজ্জাদ লোন, সিপিএম নেতা এম ওয়াই তারিগামি এবং জম্মু-কাশ্মীর আওয়ামি ন্যাশনাল কনফারেন্সের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মুজাফ্ফর শাহ।
সূত্র জানায়, আঞ্চলিক দলগুলোর মধ্যে সমঝোতা ও যৌথ বিবৃতি বেশ গোপনীয়তা রক্ষা করে, বেশ নিখুঁতভাবে দেওয়া হয়। গত কয়েক দিন ধরে সব নেতা পরস্পরের সঙ্গে কথা বলেন এবং কয়েকজন দেখাও করেন।
এক সিনিয়র নেতা বলেন, শুক্রবার খসড়াটি তৈরি করে নেতাদের মধ্যে বিলি করা হয়। সব নেতা এটি অনুমোদন করেছেন।
তিনি বলেন, দিল্লী শাসকরা চাচ্ছে কাশ্মীরে যেন কেউ কিছু করতে না পারে। আমাদের দলীয় রাজনীতি বন্ধ করে রাখা হয়েছে। আমাদের সম্মিলিত লক্ষ্য হবে সংবিধানের পুনপ্রতিষ্ঠা।
সূত্রঃ বাং/জা